Buscar
15:02h. Jueves, 15 de Noviembre de 2018

বিজেপির বিরুদ্ধে তৃণমূল

কালো ছাতা এনে কালোটাকার বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আগের দিনের বিক্ষোভকে হাতিয়ার করে ভারতীয় সংসদে তাদেরই তুলাধোনা করল ক্ষমতাসীন বিজেপি। গতকাল বুধবার লোকসভায় এই নিয়ে বিতর্কে বিজেপি তৃণমূল কংগ্রেসকেই কালোটাকার দল বলল। লোকসভার স্পিকার পর্যন্ত নাম না করে তাদের উদ্দেশে বললেন, শালীন আচরণ না করলে তিনি ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবেন।...............

কালো ছাতা এনে কালোটাকার বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আগের দিনের বিক্ষোভকে হাতিয়ার করে ভারতীয় সংসদে তাদেরই তুলাধোনা করল ক্ষমতাসীন বিজেপি। গতকাল বুধবার লোকসভায় এই নিয়ে বিতর্কে বিজেপি তৃণমূল কংগ্রেসকেই কালোটাকার দল বলল। লোকসভার স্পিকার পর্যন্ত নাম না করে তাদের উদ্দেশে বললেন, শালীন আচরণ না করলে তিনি ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবেন।
বর্ধমান ঘটনা ও সারদা কেলেঙ্কারিতে জেরবার তৃণমূল গত মঙ্গলবার কালো ছাতা নিয়ে সংসদ ভবনের ভেতর ও বাইরে বিক্ষোভ দেখায়। দলীয় সাংসদদের দাবি ছিল, বিদেশের ব্যাংকে জমা থাকা কালোটাকা ১০০ দিনের মধ্যে দেশে ফেরানোর প্রতিশ্রুতি বিজেপি নেতৃত্ব রক্ষা করতে পারেনি। কাজেই ওই বিষয়ে আলোচনা করতে হবে। ছাতার মাথায় লেখা ছিল ‘কালোটাকা ফেরত আনো’। তারা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নাম করে অসংসদীয় ভাষায় স্লোগানও দেয়। লোকসভার স্পিকার সুমিত্রা মহাজন গতকাল তারই সমালোচনা করে বলেন, যে ভাষা ব্যবহৃত হচ্ছে, যে আচরণ দেখা যাচ্ছে, তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এমন চলতে থাকলে ভবিষ্যতে ব্যবস্থা নেবেন।
স্পিকারের এই হুঁশিয়ারির পরেই বিরোধীদের দাবি মেনে কালোটাকা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়। সেই বিতর্কের তির লোকসভায় সম্পূর্ণভাবে তৃণমূলের দিকে ঘুরিয়ে দেন বিজেপির তরুণ সাংসদ অনুরাগ ঠাকুর। সারদা কেলেঙ্কারির উল্লেখ করে গোটা তৃণমূলকেই তিনি কালোটাকার দল বলেন। গ্রেপ্তার সাংসদ কুনাল ঘোষ ও সৃঞ্জয় বোসের নাম করে তিনি বলেন, কালোটাকা শুধু বিদেশেই গচ্ছিত নয়, দেশেও উড়ছে। তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্যসভার সদস্য ইমরানের কথা টেনে অনুরাগ বলেন, ওই সদস্য শুধু টাকাই আত্মসাৎ করেননি, সেই টাকা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে পাঠিয়েছেন সে দেশের জঙ্গিদের সমর্থন করতে। পরিহাসের বিষয় এটাই যে যাঁদের কারবারই কালোটাকার, তাঁরাই কালো ছাতা খুলে বিক্ষোভ দেখান!
বিজেপির সাংসদের এই আচমকা আক্রমণে তৃণমূলের সাংসদেরা দৃশ্যত হকচকিত হয়ে যান। তাঁরা প্রতিবাদ জানালেও অনুরাগ দমেননি। গলা চড়ান বিজেপির অন্যরাও। শেষ পর্যন্ত তৃণমূল নেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল নেত্রী কত জনপ্রিয় তার প্রমাণ ২০১৬ সালের নির্বাচনেই বোঝা যাবে। ২০০-এর বেশি আসন পেয়ে সরকার গড়বে তৃণমূল।
লোকসভায় কালোটাকা নিয়ে বিতর্ক শুরু করেন কংগ্রেসের নেতা মল্লিকার্জুন খাগড়ে ও রাজ্যসভায় কংগ্রেসের সাবেক মন্ত্রী আনন্দ শর্মা। দুজনেই বলেন, বিজেপি নেতাদের ক্ষমা চাওয়া উচিত। অসত্য কথা বলে দেশকে তাঁরা ঠকিয়েছেন।